5 Δεκεμβρίου, 2022

বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়ুন – আপনার অধিকারগুলো  জানুন

বৈষম্য কি

প্রত্যক্ষ বৈষম্য ঘটে যখন একইরকম পরিস্থিতিতে একজন ব্যক্তির সাথে অন্য ব্যক্তির তুলনায় বর্ণ, জাতি, জাতীয় বা জাতিগত উৎস, বংশ, জন্মের ভিত্তিতে , ধর্মীয় বা অন্যান্য প্রত্যয়, অক্ষমতা বা দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা, বয়স, বৈবাহিক বা সামাজিক অবস্থান, যৌন অভিমুখীতা, লিঙ্গ পরিচয় বা লিঙ্গ বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে কম অনুকূল আচরণ করা হয়, করা হয়েছে বা করা হবে।

পরোক্ষ বৈষম্য ঘটে যখন একটি আপাত নিরপেক্ষ অবস্থান, মানদণ্ড বা চর্চা পূর্বোক্ত বৈশিষ্ট্যের অধিকারী ব্যক্তিদের অন্যান্য ব্যক্তির তুলনায় অসুবিধায় ফেলতে পারে।

নিপীড়নকে বৈষম্যের একটি রূপ বলে গণ্য করা হয় যেখানে অবাঞ্ছিত আচরণ ঘটে যা উপরোল্লিখিত ভিত্তিগুলোর একটির সাথে যুক্ত, যা একজন ব্যক্তির মর্যাদাহানীর উদ্দেশ্যে করা হয় বা একজন ব্যক্তির মর্যাদা লঙ্ঘন করা হয়, এবং যেখানে একটি ভীতিকর, প্রতিকূল, অবমাননাকর, অপমানজনক বা আক্রমণাত্মক পরিবেশ তৈরি করা হয়।

সাংগঠনিক  বৈষম্য হলো  উপরোল্লিখিত  নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন এক বা একাধিক ব্যক্তির সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের কারণে একজন ব্যক্তির সাথে কম অনুকূল আচরণ করা।

অনুভূত বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে বৈষম্য করা মানে হলো এমন একজন ব্যক্তির প্রতি কম অনুকূল আচরণ করা যার উপরোক্ত নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে বলে ধারণা করে নেওয়া হয়।

একাধিক বৈষম্য হলো উপরোক্ত একাধিক ভিত্তির উপর নির্ভর করে একজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোনো বৈষম্য, বর্জন বা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা।

এছাড়াও, “যুক্তিযুক্ত বাসস্থান অস্বীকারকে অক্ষমতা বা দীর্ঘস্থায়ী অবস্থার ব্যক্তিদের জন্য বৈষম্য বলে গণ্য করা হয়৷

বৈষম্য কোনও ব্যক্তি, ব্যবসা, সংস্থা, পাশাপাশি রাষ্ট্র দ্বারাও পরিচালিত হতে পারে।

আসুন কিছু উদাহরণ দেখি:

“তারা আমাকে জিজ্ঞেস করছিল কেন আমি দেশ ছেড়েছি এবং এখানে এসেছি। আমাকে বলছে যে আমি আমার সক্ষমতা অনুযায়ী কাজ করি না এবং প্রতিদিন তারা আমাকে বকাবকি করে এবং আমাকে হেয় করে। যতক্ষণ পর্যন্ত না আমি আর সহ্য করতে পারলাম না এবং আমি চলে এলাম। আমি প্রতিদিন এমন ব্যবহার পাওয়ার চেয়ে চাকরি না করা পছন্দ করি।”

“আমি কখনও ভাবিনি এমন একটি দিন আসবে যেখানে আমি বৈষম্যের শিকার হব। আমার একটি ভালো চাকরি ছিল এবং একটি ভালো বেতন ছিল। যখন আমাকে চাকরীচ্যুত করা হয়েছিল, তখন আমি ভেবেছিলাম যে একটি নতুন চাকরি খুঁজে পাওয়া কিছুদিনের ব্যাপার। কিন্তু 48 বছর বয়সে, আমি সমস্ত দরজা বন্ধ দেখতে পেয়েছি। আমি চাকরির তালিকা দেখতে শুরু করেছি, কিন্তু আমি আবারও হতাশ হয়েছি। তারা 30-35 বছর পর্যন্ত বয়সী লোকদের খুঁজছিল।

“আমি একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসাবে একটি সরকারী সংস্থায় চাকরির জন্য আবেদন করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু নথিগুলোর সাথে, আমাকে একটি প্রাথমিক স্বাস্থ্য কমিটি থেকে স্বাস্থ্য এবং শারীরিক যোগ্যতার সনদ জমা দিতে বলা হয়েছিল। একজন প্রতিবন্ধী হিসেবে আমি এ ধরনের সনদ পেতে পারিনি।”

“চাকুরি করাকালীন যখন তারা জানতে পেরেছিল যে আমি সমকামী, তখন সমস্যা শুরু হয়েছিল। প্রথমে দেখলাম কয়েকজন সহকর্মী একে অপরের সাথে ফিসফিস করে কথা বলছে, আমার দিকে তাকাচ্ছে এবং হাসছে। আমি তাদের কাছে গেলে, কথোপকথন হঠাৎ বন্ধ হয়ে যাবে এবং তারা সরে যাবে। তারপর আমি অপমানজনক ই-মেইল পেতে শুরু করি। আমি যখন এই পরিস্থিতি নিয়ে অভিযোগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, তারা আমাকে চাকরীচ্যুত করেছে।”

“আমি একজন ইংরেজি শিক্ষক হিসাবে চাকরির জন্য আবেদন করেছিলাম এবং  মুসলিম হওয়ার কারণে আমি প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলাম।”

 

এখন থেকে, বৈষম্যমূলক আচরণ শুধুমাত্র একটি নৈতিক এবং সামাজিকভাবে নিন্দনীয় পদক্ষেপ হবে না, এটি 4443/2016 আইনের লঙ্ঘন হিসাবে বিবেচিত হবে যা শাস্তিযোগ্য

 

আইন

4443/2016 আইনের লক্ষ্য হল আচরণে সমতার নীতি প্রচার করা,  বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই করা এবং একে দূর করা:

(ক) ধর্মীয় বা অন্যান্য বিশ্বাস, অক্ষমতা বা দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা, বয়স, বৈবাহিক বা সামাজিক অবস্থা, যৌন অভিমুখিতা, লিঙ্গ পরিচয় বা লিঙ্গ বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে, এটি সুরক্ষা প্রদান করছে

  • কর্মসংস্থান এবং শ্রম ক্ষেত্রে, বিশেষ করে:
  • কর্মসংস্থানে প্রবেশ এবং নিয়োগের শর্তাবলীর উপর
  • চাকরির শর্তাবলীর উপর
  • বেতন এবং চাকরীচ্যুতীর উপর
  • পেশাদার উন্নয়নের উপর
  • ট্রেড ইউনিয়ন কার্যক্রমের উপর
  • বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে, বৃত্তিমূলক নির্দেশনার সকল স্তরে, পেশাদার অভিজ্ঞতা অর্জনে।

 

(খ) বর্ণ, জাতি, জাতীয় বা জাতিগত উত্স, বংশ ও জন্মের ভিত্তিতে সুরক্ষা প্রদান, উপরোল্লিখিত ক্ষেত্রগুলিতে সুরক্ষা প্রদানের পাশাপাশি  এটি সুরক্ষা দিচ্ছে:

  • সামাজিক সুরক্ষা এবং সামাজিক সুবিধা
  • শিক্ষা
  • স্বাস্থ্যসেবা
  • এবংবাসস্থান সহ পণ্য এবং পরিষেবাগুলিতে সুবিধা পেতে।

 

এই আইন সরকারি বেসরকারি খাতের সকল ব্যক্তির জন্য প্রযোজ্য

বৈষম্যের শিকার হওয়া ব্যক্তিরা কী করতে পারে?

আইনটি বৈষম্যের শিকার ব্যক্তিদের ন্যায়বিচার অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার অনুমোদন দেয়। এই ক্ষেত্রে, বৈষম্যের শিকার ব্যক্তিকে একটি উপযুক্ত প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ বা আদালতের কাছে তথ্য উপস্থাপন করতে হবে এবং বিরোধী পক্ষকে (কথিত বৈষম্যকারী) প্রমাণ করতে হবে যে তিনি আইন লঙ্ঘন করেননি

আপনি যদি মনে করেন যে আপনি বৈষম্যের শিকার হয়েছেন, তাহলে আপনার প্রতি পরামর্শ হলো মামলাটি আদালতে নেবার আগে করণীয় সব শেষ করুন।  আপনি নিম্নলিখিত পদক্ষেপ নিতে পারেন:

আইনি কাঠামো এবং কর্তৃপক্ষ এবং সংস্থাগুলি সম্পর্কে জানুন যেগুলো আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

আপনার মামলা প্রস্তুত করুন  আপনার প্রতি বৈষম্য করা হয়েছে তা প্রমাণ করার জন্য একটি আইনি উপায়ে, বিশেষ করে লিখিত আকারে প্রমাণ সংগ্রহ করুন । তথ্যের নোট সহ একটি রেকর্ড রাখুন। আপনাকে সমর্থন করার জন্য সাক্ষী খোঁজার চেষ্টা করুন। আপনার চাকরির আবেদনের সাথে প্রাসঙ্গিক তথ্য, চাকরির পোস্টিং ইত্যাদির সাথে প্রাসঙ্গিক তথ্য রাখুন।

একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করুন বা আপনার নিয়োগকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন করুন কিছু কোম্পানিতে, বিশেষ বিভাগ আছে যারা এই ধরনের অভিযোগ সংগ্রহ করে। বহুজাতিক কোম্পানির ক্ষেত্রে, এই ধরনের বিভাগগুলি আপনি যে দেশে কাজ করেন তার থেকে ভিন্ন দেশে অবস্থিত হতে পারে।

অভিযোগ জানাতে ন্যায়পাল, একটি নিরপেক্ষ কর্তৃপক্ষ, যা সরকারি বেসরকারি এবং শ্রম পরিদর্শকের স্থানীয় অফিসগুলোতে আচরণ সমতার নীতি প্রচার করে, তাদের সাথে যোগাযোগ করুন

সাধারণভাবে আচরণ সমতা এবং শ্রম আইনের নীতি লঙ্ঘন সংক্রান্ত অভিযোগের জন্য টেলিফোন হটলাইন

1555

 

যে সকল কর্তৃপক্ষের সাথে আপনি যোগাযোগ করতে পারেন:

গ্রীক ন্যায়পালআচরণ সমতা বিষয়ক কার্যক্রম বিভাগ

ঠিকানা: চালককোন্দিলি 17, পোস্টাল কোড 104 32 এথেন্স, টেলিফোন (+30) 213 1306 775 এবং 213 1306 794,

 মেইল: press@synigoros.gr

 

শ্রম পরিদর্শকস্বাধীন কর্তৃপক্ষ

ঠিকানা: ড্রাগাটসানিউ 8, পোস্টাল কোড 101 10 এথেন্স, টেলিফোন 1555,

 মেইল: helpdesk@sepenet.gr

 

শ্রম সমাজ বিষয়ক মন্ত্রনালয়স্বতন্ত্র শ্রম ব্যবস্থা অধিদপ্তরসেকশন IV

ঠিকানা: স্টেডিয়াউ 29, পোস্টাল কোড 101 10 এথেন্স, টেলিফোন 2131516540, 2131516025, 2131516080,

 মেইল: oron_ergasias@ypakp.gr

 

Μετάβαση στο περιεχόμενο